ই-পেপার

সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদের আশ্রয়-প্রশ্রয়দাতাদের সঙ্গে জাতীয় ঐক্য সম্ভব নয় : আমু

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: May 12, 2018

সূর্যালোক নিউজ : শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদ দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতি বাধাগ্রস্ত করে। যারা এদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়, তাদের সঙ্গে জাতীয় ঐক্য করা সম্ভব নয়।
 
শিল্পমন্ত্রী ১২ মে দুপুরে ঝালকাঠির একটি কমিউনিটি সেন্টারে ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের সহযোগিতায় আওয়ামী লীগ আয়োজিত ‘আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তৃণমূলের ভাবনা এবং দলীয় গণতান্ত্রিক চর্চা’ বিষয়ক প্রশিক্ষণ ও জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সরদার মোঃ শাহ আলমের সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদ সদস্য মোঃ সিদ্দিকুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খান সাইফুল্লাহ পনির, শহর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ লিয়াকত আলী তালুকদার, জেলা শ্রমিক লীগ সভাপতি মোবারক হোসেন মল্লিক, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মোস্তাফিজুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তরুন কর্মকার, মহিলানেত্রী ইসরাত জাহান সোনালী ও শারমিন মৌসুমি কেকা, নলছিটির তাজুল ইসলাম চৌধুরী, সহসাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সেলিম, কাঁঠালিয়ার আবুল বাশার বাদশা, রাজাপুরের অ্যাডভোকেট সঞ্জিব বিশ্বাসসহ জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দ বক্তৃতা করেন। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। প্রশিক্ষণ কর্মশালা পরিচালনা করেন ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল এর আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক দিপু হাফিজুর রহমান।
 
আমির হোসেন আমু বলেন, বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোতে যেভাবে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হয়, বাংলাদেশেও সংবিধান অনুযায়ী সেভাবেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
আওয়ামী লীগে তৃণমূল পর্যায়ে গণতন্ত্র চর্চা হয় দাবি করে শিল্পমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ হচ্ছে উপমহাদেশের অন্যতম গণতান্ত্রিক দল। এখানে তৃণমূল পর্যায়ে গণতন্ত্র চর্চা হয়। যারা গণতন্ত্র ও সংবিধান মানে না তাদের সঙ্গে কোন ধরনের আপোষ করা হবে না।
 
আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে হলে যোগ্যতা প্রমাণ করতে হয় জানিয়ে শিল্পমন্ত্রী আমু বলেন, তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে যাদের সম্পর্ক রয়েছে, যোগ্যতার মাপকাঠিতে যারা এগিয়ে; আওয়ামী লীগ নির্বাচনে তাদেরকেই মনোনয়ন দেয়া হবে। রাজনীতির প্রতি যাদের শ্রদ্ধা নেই, তাদের প্রতি আওয়ামী লীগেরও কোন আস্থা নেই।
 
শিল্পমন্ত্রী আমু বলেন, ধর্ম যার যার, রাষ্ট্র সবার। ধর্মীয় অনুশাসনের কারণে অনেক সময় নারীরা পিছিয়ে পড়ে। সকল প্রতিবন্ধকতা ডিঙিয়ে শেখ হাসিনা নারী জাগরণে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন। নারীরা এখন পিছিয়ে নেই, বাংলাদেশের সর্বক্ষেত্রে নারীদের জয়জয়কার।
 
জাতিসংঘের সকল নিয়ম মেনেই বাংলাদেশ এগিয়ে চলছে দাবি করে শিল্পমন্ত্রী বলেন, জাতিসংঘের ছয়টি সূচক আমরা ভাল অবস্থানে রয়েছি। আশাকরি ২০১৯ সালের মধ্যেই বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হবে। আমাদের এই উন্নয়ন অগ্রযাত্রা দেখে অনেকেই ঈর্ষান্নিত। তারা দেশের ভাল দেখতে পারে না। তাদের সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করেই বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।
 
শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু অনুষ্ঠানে উপস্থিত নেতৃবৃন্দকে ‘ দলে গণতান্ত্রিক চর্চা’ বিষয়ক শপথ পাঠ করান।
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন