ই-পেপার

সমাজের তথাকথিত বিবেকরা দেশবিরোধীদের সহযোগিতা করছেন : শিল্পমন্ত্রী আমু

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: September 1, 2017

সূর্যালোক নিউজ : ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে সরকারের বিপক্ষে কথা বলা তথাকথিত জ্ঞানী ও বুদ্ধিদাতা এবং যারা নিজেদেরকে ‘সমাজের বিবেক’ হিসেবে মনে করেন, তাদের কঠোর সমালোচনা করে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, তাদের পর্যবেক্ষণ একদিকে প্রবাহিত। তারা প্রধান বিচারপতির পক্ষ নিয়ে নানা কথা বলছেন। কিন্তু প্রধান বিচারপতির কারণে যে উদ্ভূত পরিস্থিতির সৃষ্টি হলো সে সম্পর্কে তারা নীরব। পক্ষপাতদুষ্টের কারণে প্রকৃত পক্ষে তারা দেশবিরোধীদেরই সহযোগিতা করছেন। এ দেশের মানুষ কিছুতেই তা গ্রহণ করতে পারে না।

শিল্পমন্ত্রী আমু আজ (১ সেপ্টেম্বর’১৭, শুক্রবার) মৎস্য অধিদফতরের উন্মুক্ত জলাশয়ে বিল নার্সারি স্থাপন এবং পোনামাছ অবমুক্তকরণ প্রকল্পের আওতায় ঝালকাঠির সুতালড়ি খালে পোনামাছ অবমুক্ত করেন এবং এ উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতাকোলে এসব কথা বলেন। জেলা মৎস্য কর্মকর্তা প্রীতিষ কুমার মল্লিকের সভাপতিত্বে জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হক, পুলিশ সুপার মোঃ জোবায়েদুর রহমান, জেলা পরিষদ প্রশাসক সরদার মোঃ শাহ আলম, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খান সাইফুল্লাহ পনির, পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ লিয়াকত আলী তালুকদার, নলছিটি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ইউনূস লষ্কর এবং আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি ও মৎস্য বিভাগের কর্মকর্তাসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

আমির হোসেন আমু বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর যারা দীর্ঘদিন ক্ষমতায় ছিল তারা দেশ ও জাতির মঙ্গলের জন্য কোন কাজ করেনি। পাকিস্তানের দালাল হিসেবে ক্ষমতা দখলের পর তাদের সব কর্মকান্ড ছিল স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির পক্ষে। তারা সাম্প্রদায়িকতার রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করেছিল বলেই দেশে জঙ্গিবাদের উত্থান ঘটেছিল। এইসব অপশক্তি আর যাতে মাথাচারা দিয়ে উঠতে না পারে সেদিকে সবাইকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।

শিল্পমন্ত্রী আমু বলেন, স্বাধীনতালাভের পর বঙ্গবন্ধু দেশের সম্ভবনাময় ৪টি সম্পদের কথা ব্যক্ত করেছিলেন। তা হলো- পাট, চা, চামড়া ও মাছ। আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য কোন সরকার এই খাতগুলোর দিকে খেয়াল দেয়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শিতার কারণে আমরা সমুদ্র সীমানা পেয়েছি। মাছে-ভাতে বাঙালির হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে সরকার নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সমুদ্রের মৎস্য সম্পদ ঠিকমতো আরোহন করা গেলে দেশের মানুষের চাহিদা পূরণ করে আমরা বিদেশেও মাছ রফতানি করতে সক্ষম হবো।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন