ই-পেপার

নিজের বাল্যবিয়ে ঠেকিয়ে আলোচিত ঝালকাঠির শারমিন মায়ের বিরুদ্ধে আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: August 27, 2017

কে এম সবুজ (সূর্যালোক নিউজ) : নিজের বাল্যবিয়ে ঠেকিয়ে আলোড়ন সৃষ্টিকারী ও আন্তর্জাতিক পুরস্কারপ্রাপ্ত ঝালকাঠির শারমিন আক্তার আদালতে দাঁড়িয়ে তাঁর মায়ের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়েছেন। রোববার (২৭ আগস্ট’১৭) ঝালকাঠির নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ বজলুর রহমান তাঁর সাক্ষ্যগ্রহণ করেন। এ সময় ‘জোর করে বিয়ে দেয়াসহ মায়ের ভূমিকার’ বর্ণনা দেয়া হয়।

অভিযোগে প্রকাশ, নবম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় ২০১৫ সালের ৬ আগস্ট চিকিৎসা করানোর কথা বলে শারমিনকে তাঁর মা রাজাপুরের বাসা থেকে খুলনায় নিয়ে যান। সেখানে একটি বাসায় ‘মায়ের কথিত প্রেমিক’ স্বপন খলিফার কক্ষে রাতে তাকে ঢুকিয়ে দিয়ে মা দরজা বন্ধ করে দেন। ৭ আগস্ট শারমিন কৌশলে বাসা থেকে বের হয়ে রাজাপুর চলে যান। ১৬ আগস্ট শারমিন ও সহপাঠী নাদিরা আক্তার সাংবাদিকদের সহযোগিতায় রাজাপুর থানায় গিয়ে মা ও তার কথিত প্রেমিকের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

দাদী গোলেনূর বেগমের সঙ্গে ঝালকাঠিতে আসেন জেলার রাজাপুরের বাগড়ি এলাকার প্রবাসী কবির হোসেনের মেয়ে শারমিন। বর্তমানে সে ঢাকার ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাদশ শেণির ছাত্রী। অনন্য সাহসিকতার জন্য গত ৩০ মার্চ তাকে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সাহসী পুরস্কার (সেক্রেটারি অব স্টেটস ইন্টারন্যাশনাল উইমেন কারেজ অ্যাওয়ার্ড) দেয়া হয়। শারমিন এছাড়া বাংলাদেশের ‘স্বর্ণকিশোরী’ পুরস্কারও পেয়েছেন।

রাষ্ট্র পক্ষে অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট এম আলম খান কামাল এবং আসামি পক্ষে অ্যাডভোকেট আবদুর রশীদ সিকদার মামলা পরিচালনা করেন। আসামি স্বপন খলিফা আদালতে উপস্থিত থাকলেও অসুস্থতার কারণে শারমিনের মা হেনোয়ারা বেগম অনুপস্থিত ছিলেন। তাঁরা দু’জন আগে আদালত থেকে জামিন লাভ করেন। আগামী ৫ অক্টোবর মামলার পরবর্তী দিন ধার্য করা হয়েছে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন